পেঁয়াজের বাজার নিম্নমুখী হলেও রসুনের দাম চড়া

Print Friendly, PDF & Email

সরবরাহ কমায় রসুনের বাজার ক্রমেই ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছে। দুই মাসের ব্যবধানে পণ্যটির দাম বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। গতকাল রাজধানীর বাজারগুলোয় প্রতি কেজি আমদানি করা রসুন ১৮০ টাকা এবং দেশী জাত ১৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

এদিকে বেশ কিছুদিন ধরে কম দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। এতে ক্রেতাদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি রয়েছে। তবে আগের মতোই কিছুটা চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে সয়াবিন তেল, লবণ, ডিম ও ব্রয়লার মুরগি। তবে চাল, গরু ও খাসির মাংসসহ অনেক পণ্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে।

গতকাল রাজধানীর মালিবাগ, মিরপুর-২ কাঁচাবাজার, মগবাজার ও কারওয়ান বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এক সপ্তাহের ব্যবধানে রসুনের দাম কেজিতে ১০ টাকা বেড়েছে। প্রতি কেজি দেশী রসুন ১৪৫-১৫০ টাকা, এক দানা রসুন ২০০ টাকা ও আমদানি করা রসুন ১৮০-১৮৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে পেঁয়াজের বাজার নিম্নমুখী রয়েছে। দেশী পেঁয়াজ বাজারে আসার পর প্রতি কেজি ২২-২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পাইকারি ব্যবসায়ীরা জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে রসুনের দাম গত কয়েক মাস ধরে বাড়তির দিকে। এর প্রভাব পড়েছে দেশের বাজারে। চীনা রসুনের দাম অনেক দিন ধরে চড়া থাকায় অনেকে লোকসানের আশঙ্কায় আমদানি কমিয়ে দিয়েছেন। এ কারণে বাজারে সরবরাহ কম থাকায় বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে পণ্যটি।

কারওয়ান বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ী ইউনুস আলী বলেন, নতুন মৌসুম শুরু হলেও দেশী রসুনের সরবরাহ কম। তাই বাজারও কিছুটা চড়া। তাছাড়া কৃষকপর্যায় থেকে পুরনো রসুনও কম আসছে। তবে নতুন রসুনের সরবরাহ বাড়লে দাম কমে আসবে।

এদিকে সপ্তাহের অন্যান্য দিনের চেয়ে গতকাল সাপ্তাহিক ছুটির দিনে মুরগি কেজিতে ৫ টাকা বেশি দামে বিক্রি হয়। বিক্রেতারা জানান, বনভোজন ও বিভিন্ন উত্সবের কারণে এখন মুরগির চাহিদা বেশি। এ কারণে দাম বাড়ছে। গতকাল প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১৪৫-১৫০ টাকায় বিক্রি হয়। প্রতি হালি ডিমের দাম ৩৪-৩৬ টাকা। গত সপ্তাহ থেকে খুচরা পর্যায়ে বেশি দামে লবণ বিক্রি হচ্ছে। প্যাকেটজাতসহ খোলা লবণ কেজিতে ৫ টাকা বাড়িয়েছে কোম্পানিগুলো। এসিআই, মোল্লা ও কনফিডেন্সসহ সব প্যাকেটজাত লবণের কেজি এখন ৩০ টাকা।

এদিকে কাঁচামরিচ কেজিতে ১০ টাকা কমে ৪০ টাকা, আলু ও টমেটো প্রতি কেজি ১২-১৫ টাকা, শালগম, শসা ও ক্ষীরা ২০-২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। শিমের দাম কেজিতে ১০ টাকা কমে ১৫-২০ টাকা হয়েছে। আর বেগুনের কেজি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা। এদিকে গত সপ্তাহের মতো একই দামে বিক্রি হচ্ছে মাছ। তবে ইলিশের সরবরাহ বাজারে বাড়তি রয়েছে বলে জানান বিক্রেতারা। এক কেজি ওজনের ইলিশের দাম এক হাজার ২০০ টাকা।