শান্তি ও সমৃদ্ধির অব্যর্থ ব্যবস্থা

Print Friendly, PDF & Email

শান্তি ও সমৃদ্ধির অব্যর্থ ব্যবস্থা

الاقتصاد الإسلامي : نظام متكامل يضمن تحقيق الأمن الاقتصادي والتنمية الشاملة
[اللغة البنغالية ]

আলী হাসান তৈয়ব
علي حسن طيب

সম্পাদনা : ড. মুহাম্মদ শামসুল হক সিদ্দিক
مراجعة: د. محمد شمس الحق صديق

অর্থনীতি :
মানুষ তার মৌলিক ও সাধারণ প্রয়োজন মেটাতে, জীবন ধারণের অত্যাবশ্যক উপকরণাদি যোগাতে নিজের চেষ্টা ও শ্রম ব্যয় করে। সে একাই তার যাবতীয় প্রয়োজন মেটানোর সবকিছু সংগ্রহ করতে পারে না, বরং এ ব্যাপারে সমাজের সবাই একে অপরের ওপর নির্ভরশীল। প্রত্যেক মানুষের ব্যয়িত এ চেষ্টা অপরের জীবনোপকরণ লাভের জন্যও অপরিহার্য।

জীবনের যাবতীয় প্রয়োজন মেটানোর নিমিত্তে পরিচালিত মানুষের তাবৎ সক্রিয়তা ও তৎপরতাকেই অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বলে। আর মানুষ যেহেতু সামাজিক জীব তাই সে বিবিধ তৎপরতা বিশেষত অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের বেলায় অবাধ স্বাধীনতা ভোগ করতে পারে না।

বরং এজন্য তাকে এমন পন্থা ও নিয়ম অনুসরণ করে চলতে হয় যা তার ব্যক্তিগত ও সামাজিক কল্যাণ নিশ্চিৎ করে। সমাজে ব্যক্তির তৎপরতা সম্পর্কে যেসব নীতি ও নির্দেশ সামাজিক কল্যাণ নিশ্চিৎ করে তাই অর্থনীতি নামে স্বীকৃত।

ইসলামি অর্থনীতি:
ইসলাম যেহেতু একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন-ব্যবস্থা, সর্ববিষয়কে অন্তর্ভুক্ত করাই যখন ইসলামের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য। তাই খুব স্বাভাবিক যে, ইসলামেও মানুষের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সম্পর্কে এমন কিছু নিয়ম-নীতি থাকবে যা তার মৌল চেতনা ও আদর্শের প্রতিনিধিত্ব করে। আর এ সব নিয়ম-নীতির ওপর গড়ে ওঠা ব্যবস্থাই ইসলামি অর্থনীতির রূপ পরিগ্রহ করেছে।

ইসলামি অর্থব্যবস্থার ভিত্তিমূল ইসলামি আকিদাসমূহ। একে কেন্দ্র করেই তার বিকাশ ও বিস্তৃতি। এসব আকিদাই হল ইসলামি অর্থনীতির মৌল চেতনা। যা মানব-প্রকৃতি, তার সুকুমার বৃত্তি ও পরিশীলিত চরিত্র রক্ষায় সাহায্য করে। পূরণ করে ব্যক্তির জীবন ধারণের জরুরি প্রয়োজনসমূহ। এসবই কিন্তু

ইসলামি অর্থব্যবস্থার বৈশিষ্ট্য। এসব বৈশিষ্ট্য ও চেতনাকে কেন্দ্র করেই ইসলামি অর্থব্যবস্থার সাধারণ নীতিমালা এবং আনুষঙ্গিক বিন্যাসের স্ফূরণ ও অনুবর্তন। এছাড়াও তা রাষ্ট্রীয় কোষাগারের আয়-ব্যয়ের খাতও নির্ধারণ করে দেয়, যেন ইসলামি রাষ্ট্র ব্যক্তির সকল প্রয়োজন মেটাতে পারে।

নিশ্চিৎ করতে পারে সমাজের সার্বিক কল্যাণ।